Title: গরমে কি কি সমস্যা হতে পারে (হিট স্টোক)

প্রচন্ড গরমে আমাদের সবার সাবধান থাকা উচিত৷ অতিরিক্ত গরম এবং অসাবধানতা থেকে ঘটে যেতে পারে বিপদ৷

কি কি হতে পারে আসুন জেনে নিই:

১/ হিট ক্রাম্প: যারা প্রচন্ড গরমে রোদের মধ্যে ব্যায়াম করেন, সাইকেল, রিকশা চালান, খেলাধুলা করেন বা যেকোন ধরনের ফিজিক্যাল এক্সারসাইজ করেন তাদের হিট ক্রাম্প হতে পারে ৷ এটা হলে আপনার মাসল ব্যাথা করবে, যদিও সাধারনত এতে স্হায়ী কোন বিপদ হয় না৷ শরীর থেকে ঘামের কারনে প্রচুর লবন বের হয়ে যাওয়ার জন্য হিট ক্রাম্প হয় ৷ ক্রিকেট খেলোয়াড়রা পটাশিয়াম সম্বৃদ্ধ ইলেকট্রোলাইট পান করেন অথবা কলা খান ৷ কলায় পটিশিয়াম আছে ৷

২/ হিট একজোসন: প্রচন্ড ঘামানো, দ্রুত শ্বাস প্রশ্বাস, পালস্ কমে যাওয়া ইত্যাদি এর অন্যতম লক্ষন ৷

৩/ হিট রাস: প্রচন্ড গরমে ঘামানোর ফলে তাপমাত্রা এডজাস্ট হয় ৷ কিন্তু অতিরিক্ত ঘাম কিংবা মোটা অড়ষ্ট জামা কাপড় পরার কারনে শরীরের ভিতরের তাপ বাইরে আসতে বাধাগ্রস্ত হয় ৷ ফলে ঘামাচি, ঘামাচির মত লাল লাল বিচি, ছোপ ছোপ লাল দাগ কিংবা এলার্জির মত সমস্যা দেখা দিতে পারে ৷

৪/ হিট স্টোক: আমাদের শরীরের ভিতরের অতিরিক্ত তাপ বাইরে বের করে দিয়ে যে ব্যবস্হা বা প্রক্রিয়া সমন্বয় সাধন করে তাকে থার্মরেগুলেটরী সিস্টেম বলে ৷ এই থার্মরেগুলেটরী সিস্টেম ফেইল করলেই বিপত্তী ঘটে ৷ তখনই হয় হিট স্টোক ৷ যাদের লোমকুপ পরিস্কার না, অথবা মোটা অড়ষ্ট জামা কাপড় পরার কারনে শরীরের ভিতরের তাপ বাইরে আসতে পারে না তথাপী প্রচন্ড গরমের কারনে থার্মরেগুলেটরী সিস্টেম ফেইল করতে পারে ৷ হিট স্টোক হলে মাথা ব্যাথা, চামড়া শুস্ক, অনিয়মিত পালস, সেন্সলেস হওয়া এমনকি মৃত্যুও হতে পারে ৷ শরীরের ভিতরকার তাপমাত্রা 40.6 °C (105.1 °F) এর বেশী হলেই এ বিপত্তী ঘটে ৷

তাই সবাই সাবধান, খুব বেশী খারাপ লাগা শুরু হলেই ছায়ায় অথবা ঠান্ডায় দাড়িয়ে বিশ্রাম নিন, স্যালাইন খান, ঠান্ডা পানি খান, ঠিলাঠালা জামাকাপড় পরুন, নিয়মিত স্নান করুন, খুব বেশিক্ষন রোদে থাকবেন না, রিক্সাওলাদের প্রতি সদয় হোন, প্রেস্টিজের তোয়াক্কা না করে ছাতা ব্যবহার করুন.......

( লেখার উত্স wikipedia, মোটিভেশন লোডশেডিং আর প্রচন্ড গরম)
1338103589_picture-19535.jpg
Comments
Write Comment
Leave your valued comment. Sign Up


TS Management System