Title: আলোর চেয়ে নিউট্রিনোর গতি অনেক বেশি : রাবি’র দুই পদার্থবিজ্ঞানীর নতুন থিওরি

আজ থেকে ১০৬ বছর আগে ১৯০৫ সালে ‘রিলেটিভিটি’ বা ‘আপেক্ষিকতত্ত্ব’ মতবাদে মহাবিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইন দেখিয়েছিলেন, আলোর গতি সবচেয়ে বেশি। তার রিলেটিভিটি মতবাদ অনুযায়ী কোনো বস্তুর গতি আলোর চেয়ে বেশি হওয়া তো দূরের কথা
এমনকি সমানও হতে পারে না। সেই
থেকে এ পর্যন্ত পৃথিবীর কোনো বিজ্ঞানীই তার ওই মতবাদের বাইরে নতুন কোনো থিওরি দিতে পারেনি। কিন্তু দীর্ঘ ১০৬ বছর পর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের দু’জন পদার্থবিজ্ঞানী ১৫/২০ বছর যাবত্ গবেষণা করে আইনস্টাইনের আপেক্ষিকতত্ত্ব মতবাদকে চ্যালেঞ্জ করে নতুন থিওরি দিয়েছেন। তাদের গবেষণায় সম্প্রসারিত আপেক্ষিকতত্ত্ব মতবাদের সাহায্যে প্রমাণিত হয়েছে, বস্তুর বেগ আলোর চেয়ে বেশি হতে পারে। সেই বস্তু কণিকা ‘নিউট্রিনো’ আলোর চেয়ে বেশি বেগে স্থানান্তরিত হয়।
গতকাল শুক্রবার দুপুরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের জুবেরী ভবনের শিক্ষক লাউঞ্জে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলিত পদার্থবিজ্ঞান ও ইলেক্ট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক প্রফেসর ড. মো. ওসমান গনি তালুকদার ও পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ড. মুশফিক আহমদ এ দাবি করেন। সংবাদ সম্মেলনে রাবি ভিসি প্রফেসর ড. এম আব্দুস সোবহান, রেজিস্ট্রার এমএ বারী, প্রক্টর ড. চৌধুরী মো. জাকারিয়া, বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ স্টাডিজের (আইবিএস) পরিচালক ড. মাহবুবর রহমান, জনসংযোগ দফতরের প্রশাসক চিত্তরঞ্জন মিশ্র, ছাত্র উপদেষ্টা গোলাম সাব্বির সাত্তার তাপু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। আন্তর্জাতিক নিয়ম মেনে এখনই সেই মতবাদের মূল থিওরি প্রকাশ না করে অচিরেই সরকারের সহায়তায় আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান আপেক্ষিকতত্ত্বের নতুন এ থিওরি বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরা হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নতুন থিওরি উদ্ভাবনকারী পদার্থবিজ্ঞানী প্রফেসর ড. মো. ওসমান গনি তালুকদার। তিনি বলেন, ‘রিলেটিভিটি’ বা ‘আপেক্ষিকতত্ত্ব’ মতবাদ অনুসারে মহাবিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইন আজ থেকে ১০৬ বছর আগে ১৯০৫ সালে উদ্ভাবন করেছিলেন, আলোর গতি সবচেয়ে বেশি। তার রিলেটিভিটি মতবাদ অনুযায়ী কোনো বস্তুর গতি আলোর চেয়ে বেশি হওয়া তো দূরের কথা এমনকি সমানও হতে পারে না’। সেই থেকে এ পর্যন্ত পৃথিবীর কোনো বিজ্ঞানীই তার ওই মতবাদের বাইরে নতুন কোন থিওরি দেননি। কিন্তু আইনস্টাইনের এই মতবাদ ভুল প্রমাণিত হয়েছে বলে সম্প্রতি (২৩ সেপ্টেম্বর) বিভিন্ন বিদেশি মিডিয়ায় তা ফলাও করে প্রচার করা হয়। একদল ইউরোপীয় বিজ্ঞানী জেনিভার কাছে ভূগর্ভস্থ সার্নের গবেষণাগার থেকে ছুড়ে দিয়েছিলেন বিশেষ জাতের কণা নিউট্রিনো। মাটি ফুঁড়ে সেই সমস্ত কণা গিয়ে পৌঁছায় ৭৩০ কি. মি. দূরে ইতালীয় গ্রান সাসো পাহাড়ে অবস্থিত অন্য একটি গবেষণাগারে। ওই দূরত্ব পাড়ি দিতে আলোর যে সময় লাগত নিউট্রিনোগুলোর সময় লেগেছে তার চেয়ে ১ সেকেন্ডের একশ’ কোটি ভাগের ৬০ ভাগ কম। যার অর্থ হলো নিউট্রিনো ছুটতে পারে আলোর চেয়ে বেশি গতিতে।
ড. ওসমান গনি বলেন, আমি এবং ড. মুশফিক আহমদ গত ১৫/২০ বছর ধরে আইনস্টাইনের রিলেটিভিটি সংক্রান্ত বিষয়ের ওপর গবেষণা করে আসছি। আমরা দু’জন নিজ নিজ ধারণার ওপর আলাদাভাবে কাজ করি। তবে একটি ব্যাপারে আমরা একমত ছিলাম তা হলো—বস্তু কণিকার বেগ আলোর চেয়ে বেশি হতে পারে। ফিজিক্সের বিদ্যমান কিছু তত্ত্বের বিশ্লেষণ করেই আমরা সেই ধারণা পাই। তিনি বলেন, ২০০১ সালে বস্তুর গতি যে আলোর গতির চেয়ে বেশি হতে পারে এ বিষয়ে যাবতীয় তথ্য-উপাত্তসহকারে আমি দঅহ অষঃবত্হধঃরাব অঢ়ঢ়ত্ড়ধপয ঃড় ঃযব জবষধঃরারঃু্থ নামক একটি বই প্রকাশ করি। বইটি প্রকাশ করার আগে তিনি এবং ড. মুশফিক আহমদ উভয়েই এ বিষয়ের ওপর লেখা কিছু গবেষণা প্রবন্ধ দেশ-বিদেশের বিজ্ঞানভিত্তিক বিভিন্ন জার্নালে প্রকাশের জন্য পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু তখন কোনো জার্নালই তাদের এ প্রবন্ধ প্রকাশ করেনি এই ভেবে যে, আইনস্টাইনের তত্ত্বের বাইরে যাওয়া যাবে না। তখন বাধ্য হয়েই ওই বইটি প্রকাশ করা হয়। আর এ বইটি প্রকাশ করার আগে ২০০১ সালের ২০ মে সংবাদ সম্মেলন করে ঘোষণা দেয়া হয় যে, নিউট্রিনো নামক বস্তুকণিকা আইনস্টাইনের আপেক্ষিকতত্ত্বের মতবাদকে লঙ্ঘন করে অর্থাত্ নিউট্রিনো নামক বস্তুকণিকা আলোর গতির চেয়ে বেশি বেগে চলে। যা ২০০১ সালে বিভিন্ন জাতীয় পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছিল।
দীর্ঘ ২০ বছর ধরে গবেষণা করে তারা আইনস্টাইনের অসম্পূর্ণ আপেক্ষিকতত্ত্ব মতবাদকে আরও সম্প্রসারিত ও সম্পূর্ণ করাসহ এ সংক্রান্ত নতুন তিনটি সমীকরণ ও কিছু মৌলিক ধ্রুব সংখ্যা আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছেন।
ড. ওসমান গনি তার বক্তব্যে বলেন, বিজ্ঞানী আইনস্টাইনের মতবাদ অনুসারে কোনো বস্তুর গতি আলোর চেয়ে বেশি হতে পারে না। আর এ সংক্রান্ত বিষয়ে আইনস্টাইন দিয়ে গেছেন পাঁচটি সমীকরণ এবং একটি মৌলিক ধ্রুব সংখ্যা। কিন্তু এ যাবত্ আইনস্টাইনের এ মতবাদ ছিল অসম্পূর্ণ। কারণ, দীর্ঘদিন ধরে গবেষণা করে তারা নানাভাবে প্রমাণ পেয়েছেন যে, বস্তুর গতি আলোর গতির চেয়ে বেশি হতে পারে।
আর এই তত্ত্বটি প্রতিষ্ঠা পেলে আধুনিক পদার্থ বিজ্ঞানের কোয়ান্টাম ও ক্লাসিক মেকানিক্স-এর ব্যাপক পরিবর্তন ঘটবে। অসার হয়ে যাবে পদার্থ বিজ্ঞান।
এর আগে ড. ওসমান গনি ও ড. মুশফিক আহমদ সংবাদ সম্মেলন করে, বই প্রকাশ করে এবং প্রবন্ধ লেখাসহ নানাভাবে ঘোষণা দিয়ে আসছেন যে, বস্তুর বেগ আলোর বেগের চেয়ে বেশি হতে পারে এবং এ সংক্রান্ত নতুন সমীকরণ দাঁড় করানোসহ কিছু মৌলিক ধ্রুব সংখ্যাও আবিষ্কার করেছেন।
সংবাদ সম্মেলনে ড. ওসমান গনি তালুকদার বলেন, আমাদের আবিষ্কৃত ও গবেষণালব্ধ এ ফলাফলগুলোর মাধ্যমে আইনস্টাইনের আপেক্ষিকতত্ত্ব ভুল প্রমাণ করা বা তার বিরোধিতা করা হবে না বরং এগুলোর মাধ্যমে আইনস্টাইনের আপেক্ষিকতত্ত্ব মতবাদ আরও সম্প্রসারিত হবে এবং তা পূর্ণতা লাভ করবে এবং পৃথিবী জানবে আপেক্ষিকতত্ত্বের নতুন মতবাদ।
খুব অল্প দিনের মধ্যেই নতুন এ থিওরির ইকোয়েশনসহ বিস্তারিত তথ্য-উপাত্ত প্রকাশের জন্য রাবি প্রশাসনের মাধ্যমে তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন। সরকারি সহায়তায় আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান সম্মেলনের মাধ্যমে তাদের এ কৃতিত্ব ভবিষ্যত্ প্রজন্মের নামে উত্সর্গ করে যাবেন বলেও সংবাদ সম্মেলন জানানো হয়।
1324458626_473.jpg
Comments
Write Comment
Leave your valued comment. Sign Up


TS Management System