Title: ঈদের মিষ্টি আইটেম

ঈদে আমরা সব সময় ট্রেডিশনাল রান্না করে থাকি। এবারের ঈদে ট্রেডিশনাল খাবারের সঙ্গে আমরা আপনাদের জন্য ভিন্ন কয়েকটি আইটেম তৈরির পদ্ধতি দিচ্ছি, ট্রাই করে দেখুন, সবাই পছন্দ করবে। আজ রইল মিষ্টি খাবার তৈরির রেসিপি:

ফালুদা:
আপেল, কলা, পেঁপে, ঘন দুধ ৪ কাপ, আইসক্রিম প্রয়োজনমত, মধু ২ টেবিল চামচ,
পেস্তাবাদাম কুচি ২ চা চামচ, মাওয়া ২ চা চামচ এবং জেলো ২ প্যাকেট।

যেভাবে তৈরি করবেন: ঘন করে দুধ গুলিয়ে ঠান্ডা করে নিন। ফলগুলো ছোট ছোট করে কেটে মধু দিয়ে মেখে রাখুন। পরিবেশন পাত্রে প্রথমে কিছুটা জেলো দিয়ে ফলগুলো রাখুন, এবার তার উপর ঘন দুধ দিন। আইসক্রিম দিয়ে এর উপর পেস্তা ও মাওয়া ছড়িয়ে দিয়ে জেলো দিন।

মাওয়া তৈরি: গুঁড়া দুধ ৪ টেবিল চামচ, চিনি ২ টেবিল চামচ, ঘি পরিমাণমতো নিয়ে সবকিছু একসঙ্গে মেখে মাওয়া বানিয়ে নিন।
জেলো: এক প্যাকেট জেলো আধা কাপ গরম পানিতে মিশিয়ে ট্রেতে ঢেলে ঠাণ্ডা করে জমিয়ে ইচ্ছামতো কেটে নিন।

চিড়ার পিঠা:
উপকরণ: চিড়া আধা কেজি, দুধ ১ লিটার, এলাচ গুঁড়া- আধা চা চামচ, চিনি ১ কেজি পানি পরিমান মতো, লবন সামান্য তেল ৫০০ গ্রাম।

পুরের জন্য: দুধের সর, চিনি এবং কোরানো নারকেল মেখে চুলায় দিয়ে ভুনা করে পানি শুকিয়ে ক্ষীর তৈরি করুন।

প্রস্তুত প্রনালী: প্রথমে দুধ জ্বালিয়ে অর্ধেক করে নিন। এবার চিড়া ধুয়ে দুধ এবং লবন দিয়ে আধা ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন। চিড়া নরম হলে এলাচ গুঁড়া দিয়ে ভোলো করে চটকে নিন অথবা বেটে নিতে পারেন।

চুলায় পানি ও চিনি দিয়ে শিরা তৈরি করুন। চিড়া দিয়ে পছন্দমতো শেপে পিঠা তৈরি করুন। ভেতরে ক্ষীরের পুর দিন।

পাত্রে তেল গরম করে পিঠা ভেজে তুলুন। সবগুলো পিঠা ভেজে একসঙ্গে শিরায় দিন। এবার চুলার তাপ কমিয়ে আধা ঘণ্টা রেখে দিন।

ঠান্ডা করে চিড়ার পিঠা পরিবেশন করুন। মজার কথা হচ্ছে এই পিঠা দেখতে এমন হয় যে প্রথমে কেউ বিশ্বাস করতে চায় না এটা যে ঘরেই তৈরি করা ।

ঈদে গরুর মাংস
ঈদুল আযহা-এর রান্নার আইটেমে একটি বড় অংশ জুড়ে থাকে গরুর মাংস। গতানুগতিক রান্নাতো আমরা সবসময়ই করি। ঈদে না হয় ভিন্ন স্বাদের এই খাবারগুলো ট্রাই করুন:

শিক কাবাব:
উপকরণ : গরুর হাড়ছাড়া মাংস ১ কেজি, কাঁচা পেঁপে ১ টুকরো, মরিচ গুঁড়া ২ চা চামচ, হলুদ গুঁড়া ২ চা চামচ, আদা, রসুন, পেয়াজবাটা ২ টেবিল চামচ, লবণ পরিমাণমতো, ঘি ১ কাপ।

যেভাবে করবেন: মাংস ছোট ছোট কিউব করে কেটে পানি ঝরিয়ে নিন। খোসাসহ পেঁপে বেটে ৩ চা চামচ দিন। এবার মাংসের সাথে সব মসলা মেখে ৩ ঘণ্টা মেরিনেট করে রাখুন। এবার শিকে ঘি বা মাখন লাগিয়ে মাংসের টুকরো গেঁথে কাঠকয়লায় ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে নিন রান্না করুন। লক্ষ্য রাখবেন যেন পুড়ে না যায় কিন্তু ভালোভাবে সিদ্ধ হয়।

পরিবেশন পাত্রে সাজিয়ে পেয়াজ কুচি ও লেবুর রস দিয়ে পোলাও অথবা পরোটার সাথে পরিবেশন করুন।

কোফতা:
উপকরণ: গরুর মাংসের কিমা ১ কেজি, কমলা ২টি, পেয়াজ কুচি ১ কাপ, পেয়াজ বাটা ২ টেবিল চামচ, আদা বাটা ২ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ৩ চা চামচ, এলাচ ৪টি, দারুচিনি ৪ টুকরো, ধনে ১ চা চামচ, মরিচ ১ চা চামচ, কাঁচামরিচ ৬টি, বিস্কুটের গুঁড়া ২ টেবিল চামচ, চিনি ১চা চামচ, বাটার অয়েল ৩ টেবিল চামচ, তেল ১ কাপ, জায়ফল ও জয়ত্রী গুঁড়া আধা চা চামচ, লবণ স্বাদমতো।

যেভাবে তৈরি করবেন: কমলার খোসা ছাড়িয়ে রস বের করে নিন। পেঁয়াজ বেরেস্তা করে রাখুন।
কিমার মধ্যে অর্ধেক পেঁয়াজ বাটা, অর্ধেক আদা বাটা ও রসুন বাটা, দই, বিস্কুটের গুঁড়া, লবণ, জায়ফল ও জয়ত্রী গুঁড়া এবং মরিচের গুঁড়া দিয়ে মাখিয়ে গোল শেপে কোফতা তৈরি করে গরম তেলে হালকা করে ভেজে নিন।

এবার পাত্রে বাটার অয়েল দিয়ে বাকি সব মসলা কষিয়ে অল্প পানি ও কমলার রস দিয়ে ভালো করে কষানো হলে ফুটে কোফতাগুলো দিন।

পেঁয়াজ বেরেস্তা এবং চিনি ছড়িয়ে দিন। ঝোল শুকিয়ে তেল ওপরে উঠলে কোফতা নামিয়ে নিন।

সব শেষে পছন্দমেতা সাজিয়ে পরিবেশন করুন।

আচার মাংস
উপকরন: গরুর মাংস ১ কেজি, পিয়াজকুচি ১ কাপ, রসুনকুচি ১/৪ কাপ, আদা বাটা ১ টেবিল চামচ, ধনে গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, মরিচ গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, জিরা গুঁড়া ১ চা চামচ, পাঁচফোরণ: ১ চা চামচ জলপাই-এর আচার ৩ টেবিল চামচ, সরিষার তেল ১/২ কাপ, শুকনা মরিচ-৬ টি, তেজপাতা ২ টি।

প্রনালী: কড়াইয়ে সরিষার তেল দিয়ে গরম হয়ে উঠলে শুকনা মরিচ, তেজপাতা ও পাঁচফোরণ দিয়ে পিয়াজ কুচি ও রসুন কুচি দিয়ে বাকি সব মশলা বাদামি হওয়া পর্যন্ত নাড়তে থাকুন। এর পর মাংস ও আঁচার দিয়ে রান্না করুন। ঝোল শুকিয়ে তেল ভেসে উঠলে নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।
1323586229_mis.jpg
Comments
Write Comment
Leave your valued comment. Sign Up


TS Management System